দেশ

কেন্দ্রের পরিকল্পনা রুখতে, NPR করতে এলে ভুল তথ্য দিন – কড়া বার্তা অরুন্ধতী রায় এর

NRC এবং CAA নিয়ে গোটা দেশ উত্তাল হয়ে আছে। এই দুটি আইনের পর এইবার জাতীয় জনসংখ্যা নিবন্ধীকরণ তথা NPR এর বিরোধীতা করলেন অরুন্ধতী রায়।

অরুন্ধতী রায় একজন নামকরা লেখিকা ও সমাজকর্মী। অরুন্ধতীর কথা অনুযায়ী, -“NPR আদতে জাতীয় নাগরিকপঞ্জির একটি প্রথম ধাপ।” তিনি তাই প্রথম থেকেই এনপিআরের বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ানোর ডাক দিলেন দেশবাসীকে।

দেশের সকল মানুষের কাছে তিনি অনুরোধ করেছেন -NPR এর বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়াতে। তিনি দেশের সকল মানুষের কাছে আবেদন করেছেন, “NPR করতে এলে ভুল তথ্য দিয়ে বিভ্রান্তি তৈরি করুন। তাহলেই এই প্রক্রিয়া রুখে দেওয়া যাবে।”

অরুন্ধতী দেবী এদিন সেই সকল মানুষ যারা NRC ও CAA র বিরুদ্ধে লড়ছেন তাদের পাশে দাঁড়ানোর বিষয়েও বলেন, “NRC ও CAA-র বিরুদ্ধে যারা প্রতিবাদ করছেন তাদের বিভিন্ন রাজ্যের থেকে সঠিক প্রতিশ্রুতি আদায় প্রয়োজন।

যাতে রাজ্য সরকারগুলি নাগরিকত্ব নিয়ে এই পদক্ষেপগুলি বাস্তবায়িত না করে।” উত্তরপ্রদেশের উল্লেখ করে তিনি বলেন-” উত্তরপ্রদেশের মুসলিমদের উপর হামলা চলছে। পুলিশ ঘরে ঘরে ঢুকে অবাধে লুঠপাট চালাচ্ছে।”

দিল্লী বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র ছাত্রীরা এনআরসি বিরোধী যে আন্দোলন করে তাতে যোগ দিয়েছিলেন অরুন্ধতী। সেইদিনই CAA ও NRC এবং NPR-এর বিরোধীতা করেন লেখিকা।

CAA বিরোধী আন্দোলন রুখতে পুলিশের যে কার্যকলাপ তার ও কড়া সমালোচনা করেন অরুন্ধতী। তিনি বলেন- “আমরা গুলি, লাঠিপেটা খাওয়ার জন্য জন্মাই নি।”

এ ছাড়া এদিন তিনি আরো বলেছেন- “প্রথম থেকেই এর বিরোধিতা করুন। NPR করতে দেবেন না। এর জন্য সুনির্দিষ্ট পরিকল্পনার দরকার। প্রয়োজনে NPR এর সময়ে ভুল তথ্য ও ঠিকানা দিয়ে বিরোধিতা করুন।

”সাধারন মানুষকে বিষয়টি পুরোপুরি বুঝিয়ে তিনি বলেছেন, “ওরা আপনার বাড়ি যাবে, আপনার নাম, ফোন নম্বর নেবে। আধার ও ড্রাইভিং লাইসেন্সের মতো নথি দেখতে চাইবে এবং তারপর NPR -NRC র তথ্যসমগ্রে পরিণত হবে।

অরুন্ধতী রায় এর বক্তব্য-“জাতীয় নাগরিক পঞ্জীকরণ মুসলিম দের জন্যে সমস্যা সৃষ্টি করবে।”

NRC প্রসঙ্গে অরুন্ধতী রায় নরেন্দ্র মোদিকে ও আক্রমণ করেন। তার কথায়-“গোটা দেশে এনআরসি চালু নিয়ে দিল্লির সভায় মিথ্যা বলেছেন প্রধানমন্ত্রী। এমনকী দেশে কোনো বন্দী শিবির নেই বলে দাবী করেছেন প্রধানমন্ত্রী।

তিনি জেনেশুনেই মিথ্যে বলেছেন কারণ তাঁর নিয়ন্ত্রণে বেশ কয়েকটি সংবাদমাধ্যম রয়েছে।”“NPR করতে এলে ভুল তথ্য দিন”- কেন্দ্রের পরিকল্পনা রুখতে কড়া বার্তা অরুন্ধতী রায় এর
“NPR করতে এলে ভুল তথ্য দিন”- কেন্দ্রের পরিকল্পনা রুখতে কড়া বার্তা অরুন্ধতী রায় এর

NRC এবং CAA নিয়ে গোটা দেশ উত্তাল হয়ে আছে। এই দুটি আইনের পর এইবার জাতীয় জনসংখ্যা নিবন্ধীকরণ তথা NPR এর বিরোধীতা করলেন অরুন্ধতী রায়।

অরুন্ধতী রায় একজন নামকরা লেখিকা ও সমাজকর্মী। অরুন্ধতীর কথা অনুযায়ী, -“NPR আদতে জাতীয় নাগরিকপঞ্জির একটি প্রথম ধাপ।” তিনি তাই প্রথম থেকেই এনপিআরের বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ানোর ডাক দিলেন দেশবাসীকে।

দেশের সকল মানুষের কাছে তিনি অনুরোধ করেছেন -NPR এর বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়াতে। তিনি দেশের সকল মানুষের কাছে আবেদন করেছেন, “NPR করতে এলে ভুল তথ্য দিয়ে বিভ্রান্তি তৈরি করুন। তাহলেই এই প্রক্রিয়া রুখে দেওয়া যাবে।”

অরুন্ধতী দেবী এদিন সেই সকল মানুষ যারা NRC ও CAA র বিরুদ্ধে লড়ছেন তাদের পাশে দাঁড়ানোর বিষয়েও বলেন, “NRC ও CAA-র বিরুদ্ধে যারা প্রতিবাদ করছেন তাদের বিভিন্ন রাজ্যের থেকে সঠিক প্রতিশ্রুতি আদায় প্রয়োজন।

যাতে রাজ্য সরকারগুলি নাগরিকত্ব নিয়ে এই পদক্ষেপগুলি বাস্তবায়িত না করে।” উত্তরপ্রদেশের উল্লেখ করে তিনি বলেন-” উত্তরপ্রদেশের মুসলিমদের উপর হামলা চলছে। পুলিশ ঘরে ঘরে ঢুকে অবাধে লুঠপাট চালাচ্ছে।”

দিল্লী বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র ছাত্রীরা এনআরসি বিরোধী যে আন্দোলন করে তাতে যোগ দিয়েছিলেন অরুন্ধতী। সেইদিনই CAA ও NRC এবং NPR-এর বিরোধীতা করেন লেখিকা।

CAA বিরোধী আন্দোলন রুখতে পুলিশের যে কার্যকলাপ তার ও কড়া সমালোচনা করেন অরুন্ধতী। তিনি বলেন- “আমরা গুলি, লাঠিপেটা খাওয়ার জন্য জন্মাই নি।”

এ ছাড়া এদিন তিনি আরো বলেছেন- “প্রথম থেকেই এর বিরোধিতা করুন। NPR করতে দেবেন না। এর জন্য সুনির্দিষ্ট পরিকল্পনার দরকার। প্রয়োজনে NPR এর সময়ে ভুল তথ্য ও ঠিকানা দিয়ে বিরোধিতা করুন।

”সাধারন মানুষকে বিষয়টি পুরোপুরি বুঝিয়ে তিনি বলেছেন, “ওরা আপনার বাড়ি যাবে, আপনার নাম, ফোন নম্বর নেবে। আধার ও ড্রাইভিং লাইসেন্সের মতো নথি দেখতে চাইবে এবং তারপর NPR -NRC র তথ্যসমগ্রে পরিণত হবে।

অরুন্ধতী রায় এর বক্তব্য-“জাতীয় নাগরিক পঞ্জীকরণ মুসলিম দের জন্যে সমস্যা সৃষ্টি করবে।”

NRC প্রসঙ্গে অরুন্ধতী রায় নরেন্দ্র মোদিকে ও আক্রমণ করেন। তার কথায়-“গোটা দেশে এনআরসি চালু নিয়ে দিল্লির সভায় মিথ্যা বলেছেন প্রধানমন্ত্রী। এমনকী দেশে কোনো বন্দী শিবির নেই বলে দাবী করেছেন প্রধানমন্ত্রী। তিনি জেনেশুনেই মিথ্যে বলেছেন কারণ তাঁর নিয়ন্ত্রণে বেশ কয়েকটি সংবাদমাধ্যম রয়েছে।”

Comment here